শনিবার, ২২ জানুয়ারী ২০২২, ০৫:৩৬ অপরাহ্ন

পাখি বন্ধু মতিন সৈকত

আলমগীর হোসেন
  • Update Time : শুক্রবার, ৮ মে, ২০২০
  • ৪৩৫ Time View

পাখি ভালোবাসেনা এরকম লোক নেই। কিন্তু বিপদগ্রস্ত পাখির পেছনে ছুটে যান যুগের পর যুগ এমন দৃষ্টান্ত বিরল। আটক, আহত সহাস্রাধিক বিপন্ন পাখি উদ্ধার এবং অবমুক্তির পাশাপাশি যিনি বন্যপ্রাণী সংরক্ষণে অসাধারণ অবদান রেখে চলছেন। তিনি কুমিল্লার দাউদকান্দি উপজেলার আদমপুরের কৃষকবন্ধু মতিন সৈকত। প্লাবন ভূমিতে মৎস্য চাষে দাউদকান্দি মডেল। দাউদকান্দির প্লাবন ভূমিতে শতাধিক মৎস্য প্রকল্পের পাশাপাশি পুকুর -দীঘি, ডোবা-নালা, খাল-বিলে মাছের বাণিজ্যিক চাষ হয়। শিকারী পাখিদের প্রধান খাদ্য মাছে। এখানে মাছ শিকারী হাজারো পাখির বিচরণ। বিশেষ করে ঝাঁকে-ঝাঁকে পানকৌড়ি, চিল, বক, পরিযায়ী পাখির মিছিল। মৎস্য খামারিরা তাদের ছোট মাছকে সুরক্ষার জন্য প্রকল্পে সুতা, নেট বা জাল বিছিয়ে রাখে এতে অনেক পাখি আটকে আহত হয়ে ঝুলে থাকে। মতিন সৈকত এসব পাখি খুঁজে বের করে পরিচর্যা দিয়ে সুস্থ করে মুক্ত আকাশে উড়িয়ে দেন। উল্লেখ্য, মতিন সৈকত ত্রিশ বছর ধরে কৃষি, পরিবেশ, সমাজ উন্নয়নে কাজ করে বৈপ্লবিক পরিবর্তনের প্রচেষ্টা চালাচ্ছেন। তিনি মাত্র দুইশ টাকার বিনিময়ে মৌসুমব্যাপী বোরোধান আবাদে ত্রিশ বছর সেচ সুবিধা দিয়ে জাতীয়ভাবে দৃষ্টান্ত স্হাপন করেছেন। বিষমুক্ত ফসল, নিরাপদ খাদ্য উৎপাদন, খাল-নদী পূনঃখনন আন্দোলন, প্লাবন ভূমিতে মৎস্য চাষ সম্প্রসারণ, পাখি উদ্ধার ও অবমুক্ত করণ, জীব বৈচিত্র্য এবং বন্যপ্রাণী সংরক্ষণ সিটিজেন ফার্টিলাইজার বা নাগরিক সার উৎপাদন নিয়ে কাজ করছেন। মতিন সৈকত তার কাজের স্বীকৃতি স্বরপ মহামান্য রাষ্ট্রপ্রতির অভিনন্দন পত্র পেয়েছেন। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী কর্তৃক দুইবার বঙ্গবন্ধু জাতীয় কৃষি পদকে ভূষিত হয়েছেন। সরকারিভাবে চারবার চট্টগ্রাম বিভাগে পরিবেশ সংরক্ষণ ও দূষণ নিয়ন্ত্রণ ব্যাক্তিগত ক্যাটাগরিতে প্রথম স্থান অর্জন করেছেন। জাতিসংঘের খাদ্য এবং কৃষি সংস্থা F,A,O এবং কানাডা বাংলাদেশ সেন্টার কর্তৃক প্রশংসিত হয়েছেন। বিবিসি টেলিভিশন সহ বিভিন্ন প্রচার মাধ্যম তার সৃজনশীল কাজ-কে উপস্থাপন করেছে।

Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category
© All rights reserved © 2019 Suchana Community TV
themebazsuchana231231