বৃহস্পতিবার, ২৭ জানুয়ারী ২০২২, ০৮:১৬ পূর্বাহ্ন

দুই কন্যা শিশু নিয়ে মায়ের ঘোরাঘুরির অনুমতি আদালতে বহাল

ডেস্ক রিপোর্ট: মো: আবু তাহের নয়ন
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ৯ সেপ্টেম্বর, ২০২১
  • ২৮ Time View

আগামী ১৬ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত জাপানি মা নাকানো এরিকোকে মেয়েদের সঙ্গে রাতে থাকা, তাদের নিয়ে বাসার বাইরে ঘোরা ও মার্কেটে যাওয়ার অনুমতি দিয়ে হাইকোর্টের আদেশের বিরুদ্ধে পিতা ইমরান শরীফের করা আবেদনে আদালত ‘নো অর্ডার’ বলে আদেশ দিয়েছেন আপিল বিভাগের চেম্বার বিচারপতি ওবায়দুল হাসান। ফলে হাইকোর্টের আদেশ বহাল থাকলো। আদালতে ইমরান শরীফের পক্ষে আইনজীবী ছিলেন ব্যারিস্টার ফিদা এম কামাল ও অ্যাডভোকেট পাওজিয়া করিম ফিরোজ। মায়ের পক্ষে ছিলেন অ্যাডভোকেট মোহাম্মদ শিশির মনির।

বিচারপতি এম. ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি মো. মোস্তাফিজুর রহমানের হাইকোর্ট বেঞ্চ বুধবার এক আদেশে ৯, ১১, ১৩ ও ১৫ সেপ্টেম্বর-এই চারদিন দিবাগত রাতে মেয়েদের সঙ্গে মাকে থাকার অনুমতি দেন। আদেশে বলা হয়, অন্য সময় মা ও পিতা উভয়েই থাকতে পারবেন ওই বাসাতে। মা ঘোরাঘুরি সময় যাতে শিশু দুটিকে নিয়ে জাপানে নিয়ে যেতে না পারে তা মায়ের আইনজীবী অ্যাডভোকেট মোহাম্মদ শিশির মনিরকে নিশ্চিত করতে বলা হয়েছে। তবে পিতাও মেয়েদের নিয়ে বাইরে ঘুরতে চাইলে তা করতে পারবেন। এছাড়াও মেয়ে দুটির মা ও পিতাকে নিয়ে বিভিন্ন অনলাইন মাধ্যমে প্রচারিত সকল ভিডিও অপসারণে পদক্ষেপ নিতে বিটিআরসিকে নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। পাশাপাশি এসব ভিডিও নির্মাতা এবং আপলোডকারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে সিআইডির সাইবার ক্রাইম ইউনিটকে নির্দেশ দেওয়া হয়। এ অবস্থায় মায়ের এককভাবে থাকা ও ঘোরাঘুরির অনুমতির আদেশের বিরুদ্ধে আপিল বিভাগের চেম্বার বিচারপতির আদালতে আবেদন করেন শিশু দুটির পিতা ইমরান শরীফ।

এর আগে গত ৩১ আগস্ট একই হাইকোর্ট বেঞ্চ সেই দুই কন্যা শিশুকে আপাতত আগামী ১৫ দিন জাপানি মা ও বাংলাদেশি পিতার সঙ্গেই গুলশান এক নম্বরে চার কক্ষের একটি ভাড়া বাসায় থাকার নির্দেশনা দেন। এরপর শিশু দুটিকে তেজগাঁও ভিকটিম সাপোর্ট সেন্টার থেকে ওই বাসাতে স্থানান্তর করা হয়। বাসাতে যাতে মা-বাবার মধ্যে কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা না ঘটে সেজন্য বিষয়টি মনিটরিং করতে ঢাকার সমাজসেবা অধিদপ্তরের উপপরিচালককে নির্দেশ দেওয়া হয়। এছাড়া ঢাকা পুলিশ কমিশনার ও সিআইডিকে সার্বিক নিরাপত্তা দিতে নির্দেশ দেওয়া হয়। আগামী ১৬ সেপ্টেম্বর পরবর্তী আদেশের জন্য দিন ধার্য রয়েছে। এ অবস্থায় এরিকো মেয়েদের সঙ্গে রাতে থাকা, তাদের নিয়ে বিভিন্ন বিনোদনমূলক স্থানে ঘোরার অনুমতিসহ বিভিন্ন বিষয়ে আদেশ চেয়ে পৃথক আবেদন করেন। 

শিশু দুটির মা জাপানি নাগরিক নাকানো এরিকো’র করা এক রিট আবেদনে শিশু দুটিকে ৩১ আগস্ট হাইকোর্টে হাজির করার নির্দেশ দেওয়া হয়। এ আদেশের পর গত ২২ আগস্ট রাতে শিশু দুটিকে পিতার বাসা থেকে উদ্ধার করে তেজগাঁও ভিকটিম সাপোর্ট সেন্টারে রাখে সিআইডি পুলিশ। পরদিন ২৩ আগস্ট হাইকোর্ট পৃথক এক আদেশে ৩১ আগস্ট পর্যন্ত শিশু দুটিকে তেজগাঁও ভিকটিম সাপোর্ট সেন্টারে রাখার নির্দেশ দেন। আদালতের নির্দেশনা অনুযায়ী সেখানেই গত ৩১ আগস্ট পর্যন্ত প্রতিদিন সকাল ৮টা থেকে বেলা একটা পর্যন্ত মা এবং বিকেল ৩টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত পিতা কন্যা শিশু দুটির সঙ্গে সময় কাটান। এ অবস্থায় গত ৩১ আগস্ট হাইকোর্টে হাজির করা হলে আদালত খাসকামরায় শিশু দুটি ছাড়াও তাদের মা-বাবার বক্তব্য শোনেন। এছাড়া আদালতের আহ্বানে সমঝোতায় পৌঁছানোর জন্য সন্তানদের পিতা-মাতাকে নিয়ে উভয়পক্ষের আইনজীবীরাও একাধিক বৈঠক করেন। 

জানা যায়, জাপানি নাগরিক নাকানো এরিকো এবং বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত আমেরিকান নাগরিক ইমরান শরীফের ১৩ বছরের সংসারে বিরোধের জেরে গত ১৮ জানুয়ারি বিয়ে বিচ্ছেদের জন্য জাপানি আদালতে মামলা করেন এরিকো। এরপর সন্তানদের নিজের জিম্মায় রাখতে টোকিও’র পারিবারিক আদালতে পৃথক একটি মামলা করেন এরিকো। 

টোকিও’র আদালত গত ৩১ মে এরিকোর অনুকূলে মেয়ে দুটিকে হস্তান্তরের আদেশ দেন। ওদিকে মেয়ে দুটির বাংলাদেশি পাসপোর্ট বানিয়ে গত ২১ ফেব্রুয়ারি দুবাই হয়ে বাংলাদেশে চলে আসেন পিতা ইমরান শরীফ। দেশে ফিরে সন্তানদের নিজের কাছে রাখতে ঢাকার আদালতে মামলা করেন। ঢাকার আদালত তার অনুকূলে আদেশ দেন। এছাড়া সন্তান দুটিকে ঢাকায় কানাডিয়ান ইন্টারন্যাশনাল স্কুলে ভর্তি করিয়ে দেন তিনি। এ অবস্থায় গত ১৮ জুলাই এরিকো শ্রীলঙ্কা হয়ে বাংলাদেশে আসেন। এরপর বাংলাদেশের হাইকোর্টে রিট আবেদন করেন মা এরিকো।

Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category
© All rights reserved © 2019 Suchana Community TV
themebazsuchana231231